ব্রেকিং: দীর্ঘ ৪০ বছর পর ভয়াবহ বন্যার কবলে মিয়ানমার

বন্যার কবলে মিয়ানমার – মিয়ানমার, বিশ্ব মানচিত্রে একটি আলোচিত দেশ হিসেবেই পরিচিত। বিশেষ করে রোহিঙ্গাদের জন্যই দেশটি সারা বিশ্বে বেশ কুখ্যাত। এর কারন সবারই জানা। তবে এবার দীর্ঘ ৪০ বছর পর বড় ধরনের বন্যার কবলে পড়তে যাচ্ছে মিয়ানমার।

কয়েক ঘণ্টার প্রবল বৃষ্টিপাতে দেশটির মন রাজ্যের মাওলামাইন শহরসহ কয়েকটি শহর ব্যাপকভাবে প্লাবিত হয়েছে। এতে কয়েক হাজার মানুষ তাদের ঘরবাড়ি ছড়াতে বাধ্য হয়েছে।







মিয়ানমারের গণমাধ্যমের খবরে জানা যায়, রবিবার কয়েক ঘণ্টার প্রবল বৃষ্টির পর মন রাজ্যের কয়েকটি শহর ব্যাপকভাবে প্লাবিত হয়। মাওলামাইন শহরের এক অধিবাসী থেইন হ্লা বলেন, গত ৪০ বছরের মধ্যে এই প্রথম আমি বন্যা দেখছি। এদিকে বন্যায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত আসাম।







এদিকে প্রবল বৃষ্টির কারণে পানিতে ভাসছে ভারতের সেভেন সিস্টার্স রাজ্যখ্যাত সাতটি রাজ্যের মধ্যে আসাম, ত্রিপুরা, মণিপুর ও মিজোরাম। বেশির ভাগ নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে বইছে। চার লাখেরও বেশি মানুষ বন্যায় ঘরছাড়া। আবহাওয়া দফতর থেকে আরও ভারী বৃষ্টির সতর্কতা রয়েছে। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়ার।







শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত আসাম রাজ্য দুর্যোগ মোকাবিলা কর্তৃপক্ষের (এএসডিএমএ) হিসাব অনুযায়ী রাজ্যের সাতটি জেলার ৬৬৮টি গ্রামের ৩ লাখ ৮৬ হাজার ৫৭০ মানুষ বন্যাদুর্গত।

বন্যার পানিতে ৩২৫টি বাড়ি ভেসে গেছে। বন্যার সঙ্গে যোগ হয়েছে ভূমিধস। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসছে ধসের খবর। শুক্রবার ধসের কবলে পড়েছে কামাখ্যা পাহাড়ে যাওয়ার রাস্তাও।







ধসের কারণে রেল ও সড়ক পথেও বিপত্তি দেখা দিয়েছে। শুধু আসাম নয়, ধসের ফলে মণিপুর, মিজোরাম ও ত্রিপুরারও যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

গত সোমবার ত্রিপুরার নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয় বলে জানা গেছে। রাজধানী আগরতলার বিস্তীর্ণ এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। রাজ্যের বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব বলেন, রাজ্যের পরিস্থিতি ভয়াবহ।