১১ ম্যাচ পর জয় পেল শ্রীলংকা

0
17

ফাফ ডু প্লেসিসের ইনজুরিই কি ‘জয়ের ভাগ্য’ খুলে গেল শ্রীলংকার। পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথম তিন খেলায় জিতে আগেই সিরিজ নিশ্চিত করেছে সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকা। সিরিজের চতুর্থ ম্যাচে ডিএল মেথডে ৩ রানে জয় পায় স্বাগতিক শ্রীলংকা। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে একটানা ১১টি ওয়ানডে ম্যাচে পরাজয়ের পর জয়ের দেখা পেল লংকানরা।







আগের ম্যাচে ক্যাচ নিতে গিয়ে ইনজুরিতে আক্রান্ত হন দক্ষিণ আফ্রিকার নিয়মিত অধিনায়ক ডু প্লেসিস। তার অবর্তমানে বুধবার সিরিজের চতুর্থ ওয়ানডেতে প্রোটিয়াদের নেতৃত্ব দেন উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান কুইন্টন ডি কক।







আপদকালী অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করা ডি কক দলের জয়ের ধারা অব্যাহত রাখতে পারেননি। বৃহস্পতিবার শ্রীলংকার কেন্ডিতে টসে জিতে স্বাগতিকদের আগে ব্যাটিংয়ে পাঠায় দক্ষিণ আফ্রিকা।

চতুর্থ ওয়ানডেতে বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে আগে ব্যাট করে দাসুন শানাকা (৬৫), কুশল প্যারেরা (৫১) এবং থিসেরা প্যারের (৫১*) ফিফটিতে ভর করে ৩৯ ওভারে ৭ উইকেটে ৩০৬ রান করে শ্রীলংকা।







বৃষ্টি আইনে আফ্রিকার লক্ষ্য দাঁড়ায় ২১ ওভারে ১৯১ রান। টার্গেট তাড়া করতে নেমে ডি ককের নেতৃত্বাধীন দলটি ৯ উইকেট হারিয়ে ১৮৭ রান তুলতে সক্ষম হয়। ভালো খেলেও মাত্র ৩ রানের জন্য পরাজিত হয় দক্ষিণ আফ্রিকা। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৪০ রান করেন ওপেনার হাশিম আমলা এছাড়া জেপি ডুমিনি করেন ৩৮ রান।

বৃষ্টিভেজা ম্যাচে ৩ রানের জয় পায় শ্রীলংকা। এই জয়ে সিরিজের (৩-১) পরাজয়ের ব্যবধান কিছুটা কমালো স্বাগতিকরা।







সংক্ষিপ্ত স্কোর

শ্রীলংকা: ৩৯ ওভারে ৩০৬/৭ (দাসুন শানাকা ৬৫, থিসারা পেরেরা ৫১*, কুশাল পেরেরা ৫১, ডিকভেলা ৩৪, উপুল থারাঙ্গা ৩৬ ; লুঙ্গি এনগিডি ২/৬৫, জেপি ডুমিনি ২/৩৫)।

দক্ষিণ আফ্রিকা: ২১ ওভারে ১৮৭/৯ (হাশিম আমলা ৪০, ডুমিনি ৩৮, কুইন্টন ডি কক ২৩, মিলার ২১; লাকমাল ৩/৪৬, থিসারা পেরেরা ২/৩২)।

ফল: শ্রীলংকা ৩ রানে জয়ী।

ম্যাচ সেরা: দাসুন শানাকা (শ্রীলংকা)।