আত্মহত্যার শ্যুটিং করতে গিয়ে ট্রেনের ধাক্কায় দুই বন্ধুর মৃত্যু

শৈশব বঙ্গবাসী কলেজ আর সুনীল সুরেন্দ্রনাথ কলেজের ছাত্র। শৈনদ্বীপকে সঙ্গে নিয়ে ফিল্ম তৈরি করছিলেন তারা। অনেকদিন ধরেই চলছিল প্ল্যান। ছবির প্রতিপাদ্য বিষয়, এক বন্ধু আত্মহত্যা করতে যাচ্ছেন, আরেকজন তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করছেন। এমন দৃশ্যের সিনেমার শ্যুটিং ছিল সোমবার সন্ধ্যায়।

শ্যুটিং করতে গিয়ে ট্রেনের ধাক্কায় মৃত্যু হলো দুই বন্ধুর। এ দুর্ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের বেলঘরিয়া ও দমদম স্টেশনের মাঝে।

ছোট ছবি বানানোর স্বপ্ন দেখেছিলেন তিন বন্ধু সুনীল, শৈশব ও শৈনদ্বীপ। দুই বন্ধু শৈনদ্বীপকে সঙ্গে নিয়ে ফিল্ম তৈরি করছিলেন। এদিন সিসিআর ব্রিজের নিচে সোমবার সন্ধেয় শ্যুটিং চলছিল। প্রথমবার একটি ইঞ্জিন চলে এলেও, কোনোক্রমে রক্ষা পান তারা।

তারপর পুরো শ্যুটিংয়ের ডুবে যায় তিনজনের মন। পেছন থেকে যে কখন আপ বজবজ লোকাল চলে আসে তা টের পাননি কেউই। ঘটনাস্থলেই মারা যায় শৈশব ও সুনীল। শৈনদ্বীপ বেঁচে যায়।

মর্মান্তিক এ ঘটনায় বাকরুদ্ধ শৈনদ্বীপ। চোখের সামনে দুই বন্ধুর এমন পরিণতি কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছেন না তিনি। বাকরুদ্ধ শৈনদ্বীপের শূন্য দৃষ্টিই যেন বলে দিচ্ছে তার মনের কথা। সন্তানকে হারিয়ে দুই মায়ের শূন্য বুকের হাহাকার যেন মোচড় দিচ্ছে অন্য পাঁচজনকেও।

Comments

comments