নখে জেলপলিশ ও অ্যাক্রেলিক ব্যবহার ক্ষতিকর

আজকাল ফ্যাশন সচেতন নারীদের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে জেল নেইলপলিশ এবং অ্যাক্রেলিক নেইল পেইন্টের ব্যবহার। তবে সম্প্রতি এতে এমন একটি উপাদান পাওয়া গেছে যা ক্ষতির কারণ হতে পারে।







এ অবস্থায় নখে জেল, জেলপলিশ এবং অ্যাক্রেলিক নখ অর্থাৎ কৃত্রিম নখ ব্যবহারের ব্যাপারে নারীদের সতর্ক করেছেন ত্বক বিশেষজ্ঞরা।







তারা জানান এই জেল, জেল পলিশ এবং অ্যাক্রেলিক নেইলসে এমন একটি রাসায়নিক পাওয়া গেছে যাতে ত্বকে অ্যালার্জি হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

ব্রিটিশ অ্যাসোসিয়েশন অব ডার্মাটোলজিস্ট জানিয়েছে, জেল, অ্যাক্রেলিক এবং জেল পলিশ এই তিনটিতেই বিভিন্ন মাত্রায় , মেথাক্রিলেট নামে রাসায়নিক পদার্থ রয়েছে।

যার সংস্পর্শে শুধুমাত্র আঙ্গুলে নয় বরং শরীরের যেকোনো স্থানে তীব্র চুলকানি, ফুসকুড়ি হতে পারে।

এক গবেষণায় দেখা গেছে, এই রাসায়নিকে ২ দশমিক ৪ শতাংশ মানুষের আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।







গতবছর যুক্তরাজ্য ও আয়ারল্যান্ডে এ সংক্রান্ত গবেষণা পরিচালনা করা হয়। সেখানে মোট ১৩টি ডার্মাটোলজি ইউনিটের প্রায় ৫ হাজার রোগীর ওপর জরিপ করেন গবেষকরা।

মূলত ওই রোগীদের ওপর এই রাসায়নিক প্রয়োগ করে তাদের অ্যালার্জি হয় কিনা, হলেও সেটা কেমন মাত্রায় হয় সেটা পরীক্ষা করা হয়। তাতে দেখা যায়, বেশিরভাগ রোগীর এই রাসায়নিকের সংস্পর্শে অ্যালার্জি হয়েছে।

এরমধ্যে বেশিরভাগের অ্যালার্জি হওয়ার কারণ ছিল নেইল এনহান্সমেন্ট, কৃত্রিম নখ ও কৃত্রিম চোখের পাপড়ির আঠা ব্যবহার করা।

কাদের অ্যালার্জির আশঙ্কা সবচেয়ে বেশি?







মেথাক্রিলেটের সংস্পর্শে এ ধরণের অ্যালার্জি হওয়ার আশঙ্কা আরো বেড়ে যায় যখন এই জেলপলিশ বা অ্যাক্রেলিক নখ বাড়িতে বসে বা কোনো অদক্ষ টেকনিশিয়ানের মাধ্যমে প্রয়োগ করা হয়।

যেসব বিউটিশিয়ান এসব রাসায়নিক জাতীয় উপাদান নিয়ে কাজ করেন। বা অন্যের হাতে এ ধরণের নেইলপলিশ বা কৃত্রিম নখ পরিয়ে দেন, তাদেরও অ্যালার্জি হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে।

এ অবস্থায় চর্মরোগ বিশেষজ্ঞরা জেল, জেল পলিশ হোম কিটস ব্যবহারে নারীদের আরো সতর্ক হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।







তাই যারা স্যালন বা বিউটি পার্লারে এসব পণ্য নিয়ে কাজ করেন তাদের যথাযথ প্রশিক্ষণ দেয়া জরুরি বলে জানান বিশেষজ্ঞরা।

তারা বলেন, এই রাসায়নিকটি ত্বকের যে কোনো অংশের সংস্পর্শে আসার পরপরই অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়াগুলো দেখা যেতে পারে।







এতে মুখ, ঘাড়, চোখের পাতা এমনকি শরীরের সংবেদনশীল স্থানও দেখা দিতে পারে ক্ষতিকর র‍্যাশ।

অনেকের আবার শ্বাসকষ্টজনিত রোগে ভোগারও আশঙ্কা থাকে।

আর এ ধরণের অ্যালার্জি নারীদের মধ্যেই বেশি দেখা যায়।







সারাজীবন থেকে যেতে পারে এই রাসায়নিকের প্রভাব

ব্রিটিশ অ্যাসোসিয়েশন অব ডার্মাটোলজিস্টের ড. ডেভিড অর্টন বলেন, “এটি মানুষের জন্য জানা সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ যে কৃত্রিম নখ ব্যবহার কারণে অ্যালার্জি হতে পারে।

“এটা সত্যি যে, এমন অনেক নারী আছেন, যারা এই অ্যালার্জিতে আক্রান্ত। তবে তারা এ সংক্রান্ত কোনো স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাচ্ছেন না। কারণ তারা এই অ্যালার্জির লক্ষণটির পেছনে নখের এসব আলপনাকে কারণ হিসেবে ভাবতে পারছেন না। বিশেষ করে অ্যালার্জি যখন শরীরের অন্য কোনো অংশে হয়। তখন তারা ভেবে বসেন হয়তো অন্য কোনো কারণেই এমনটা হচ্ছে।”







ড. অর্টন আরো বলেন, “এ ধরণের অ্যালার্জি হলে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাটা খুবই জরুরি। যেন তারা এই ধরণের রাসায়নিক ব্যবহার থেকে বিরত থাকতে পারে। কেননা এ ধরণের অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া হয়তো অনেককেই জীবনভর ভোগ করতে হতে পারে।”

সাধারণত দন্ত চিকিৎসায় এমনকি সার্জারিতে যে ধরণের যন্ত্র সাধারণ ব্যবহার করা হয়। সেগুলোয় এই অ্যালার্জিক উপাদান রয়েছে বলে জানা গেছে।







প্রতিকার কি?

ড. অর্টন জানান, এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকির মধ্যে থাকেন বিউটিশিয়ান এবং যারা নেইল এনহান্সমেন্ট কাজের সাথে জড়িত সেই মানুষেরা।

মেথাক্রিলেটযুক্ত নেইল পণ্যগুলো সরাসরি ত্বকের সংস্পর্শে না আনার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা।

এ অবস্থায় তাদেরকে কাজ করার সময় নিট্রাইল গ্লাভস পরার পরামর্শ দেন তিনি।







তিনি বলেন, “স্যালন মালিকদের একটা বিষয় খেয়াল রাখতে হবে যে, এই সেকশনে কর্মরত বিউটিশিয়ানদের তারা যথেষ্ট পরিমাণে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন কিনা। সেটা নিশ্চিত করতে পারলেই পেশাগত কারণে কর্মচারীদের ক্ষতি এড়ানো যাবে।”

এদিকে, রয়্যাল ইউনাইটেড হাসপাতালের বাথের চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ এবং ব্রিটিশ সোসাইটি অফ কেটানিয়াস এলার্জির সভাপতি ড. ডেইরড্রে বাক্লে বলেন, আগে চিকিৎসকরা এই রাসায়নিকের প্রতিক্রিয়ার ব্যাপারে কিছুই জানতেন না।

তিনি বলেন, “মেথাক্রিলেট থেকে অ্যালার্জি গত কয়েক দশক ধরে চলা অন্যান্য সংক্রামক অ্যালার্জির মতো হয়ে উঠতে পারে।”







এক্ষেত্রে তিনি বাড়িতে ব্যবহার উপযোগী পণ্য বা হোম কিট ব্যবহার করার সময় সতর্ক হতে বলেছেন।

তিনি বলেন, “যদি আপনি এটি ব্যবহার করেন, তাহলে এর সাথে সাথে অবশ্যই এই অ্যালার্জি নিরাময়ের জন্য প্রস্তাবিত ইউভি ল্যাম্প ব্যবহার করতে হবে। এবং এটি ব্যবহারের নির্দেশাবলী ভালভাবে পড়ে নিতে হবে।

ভুল ইউভি ল্যাম্প ব্যবহার করা মানে জেল পালিশের ক্ষতি থেকে ঠিকঠাক নিরাময় হবে না এবং এতে অ্যালার্জির আশঙ্কাও বেশি থাকবে বলে জানান ড. বাক্লে।

এ অবস্থায় তিনি মেথাক্রিলেটযুক্ত নেইল পণ্যগুলো সরাসরি ত্বকের সংস্পর্শে না আনার পরামর্শ দেন।