Thursday , 24 May 2018

জেনে নিন প্রতিদিন রাতে জ্বর আসার কারন

অনক সময় আমাদের হঠাৎ করে শুধু রাতে জ্বর আসে। দিনের বেলা আপনি দিব্যি সুস্থ্য। এর ফলে সারা রাত ছটফট করেন, ঘুম হয়না ও সকালে ক্লান্ত বোধ করেন।







পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুম হয়না বা শরীরের প্রয়োজনীয় বিশ্রামটাও হয়না। আপনাকে এক অস্বস্তিতে ফেলে দেয়। শুধু রাতে কেন জ্বর আসে একটা বড় চিন্তার ব্যাপার।







আপনি যদি রাতে জ্বরে ভোগেন তাহলে ভাল করে লক্ষণগুলো খতিয়ে দেখুন। যদি লক্ষণগুলো মিলে যায়, এখুনি ডাক্তার দেখানোর ব্যবস্থা করুন। জ্বর আসার নিশ্চিত কারণ আছে এবং সেগুলো থেকে রেহাই পাওয়া খুব দরকার। রাতে কী কী কারণে জ্বর আসতে পারে চলুন জেনে নিই –







বহিরাগত পাইরোজেন

পাইরোজেন বাইরে থেকে আসে এবং আপনার শরীরে প্রবেশ করার চেষ্টা করে। যার ফলে খুব জ্বর আসতেই পারে। আপনি দেখবেন এই পাইরোজেনরা অধিবিষ বা টকসিন সৃষ্টি করে যা আপনার স্বাস্থ্যের পক্ষে খুবই হানিকারক। শরীরের ভেতর মোনোসাইট ও ম্যাক্রোফেজেসের জন্য এই পাইরোজেন তৈরী হয় যার থেকে শরীরে জ্বরের আমেজ হয়। এটা রাতে জ্বর আসার কারণ হতে পারে।







শ্বাসনালীর উপরের দিকে সংক্রমণ

ঠান্ডা লাগা ও অন্য কোনও শ্বাসনালীর সংক্রমণ থেকেও রাতে জ্বর আসতে পারে। কখনও স্রেফ সাধারণ ঠান্ডা লাগা আপনার শরীরে জ্বর এনে দেয়। কখনও আবার স্বরনালি, দুটো শ্বাসনালী আক্রান্ত হয়ে তীব্র সংক্রমণ সৃষ্টি করে যার থেকে রাতে জ্বর আসে। এমনি ঠান্ডা লাগলে সারতে কিছুদিন লাগে কিন্তু অন্য কোনও সংক্রমণ সারতে কত সময় লাগবে নির্ভর করে ব্যক্তির শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতার ওপর।







মূত্রনালীতে সংক্রমণ

মূত্রনালীতে কোনও রকমের সংক্রমণ থাকলেও কিন্তু জ্বর আসতে পারে। মূত্রনালীতে প্রচন্ড যণ্ত্রণা এবং উপস্থিত অধিবিষ বা টকসিন্ জ্বরের কারণ। আপনার উচিত ডাক্তার দেখানো। মূত্রনালীতে সংক্রমণ ডাক্তারি নিরীক্ষণ ও ঠিকঠাক ঔষুধ খেলেই হতে পারে।







জ্বালা বা ফুলে যাওয়া

কোনও ঔষুধের প্বার্শক্রিয়া হিসেবে যদি কোনও জ্বালা বা ফুলে যাওয়া হয় তাহলে রাতে জ্বর আ্সতে পারে। এটা সাধারণ কোনও এ্যালার্জি হতে পারে যার প্বার্শক্রিয়া মারাত্মক। খেয়াল রাখুন ও যত তাড়াতাড়ি পারেন দেখিয়ে নিন।







ত্বকের রোগ বা সংক্রমণ

অনেক সময় চামড়ার কোনও সংক্রমণের জন্যও জ্বর আসতে পারে। যদি আপনরা ত্বকের কোনও রোগ আপনাকে সব সময় ঝামেলা করছে, সেটার একটা ব্যবস্থা করা উচিত এখুনি। এটা কিন্তু রাতে জ্বরের কারণ হতে পারে।