যে ৭ টি খাবার রক্তনালী ব্লক হওয়া প্রতিরোধ করবে

0
45

রক্তনালী ব্লক- অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপন এবং অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাসের কারণে রক্তনালী ব্লক হওয়া খুবই স্বাভাবিক একটি ব্যাপার। এবং শুধুমাত্র এই কারণে হৃদপিণ্ডের নানা সমস্যায় ভুগতে দেখা যায় অনেককে। এমনকি হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুমুখে পতিত হন অনেক রোগীই।







কিন্তু রক্তনালী ব্লক হওয়ার এই সমস্যা থেকে খুবই সহজে মুক্ত থাকা যায় চিরকাল। আপনাকে এর জন্য প্রচুর অর্থ ব্যয় করতে হবে না একেবারেই। খুবই সহজলভ্য কয়েকটি খাবার আপনার রক্তনালীর সুস্থতা নিশ্চিত করবে।







(১) আপেলঃ

আপেলে রয়েছে পেকটিন নামক কার্যকরী উপাদান যা দেহের খারাপ কোলেস্টেরল কমায় ও রক্তনালীতে প্লাক জমার প্রক্রিয়া ধীর করে দেয়। গবেষণায় দেখা যায় প্রতিদিন মাত্র ১ টি আপেল রক্তনালীর শক্ত হওয়া এবং ব্লক হওয়ার ঝুঁকি প্রায় ৪০% পর্যন্ত কমিয়ে দেয়।







(২) ব্রুকলিঃ

ব্রকলিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন কে যা দেহের ক্যালসিয়ামকে হাড়ের উন্নতিতে কাজে লাগায় এবং ক্যালসিয়ামকে রক্তনালী নষ্ট করার হাত থেকে রক্ষা করে থাকে। ব্রকলির ফাইবার উপাদান দেহের কোলেস্টেরল কমায় এবং উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি কমিয়ে দেয়।







(৩) দারুচিনিঃ

দারুচিনির অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট কার্ডিওভ্যস্কুলার সিস্টেমের সার্বিক উন্নতিতে কাজ করে থাকে। এছাড়াও গবেষণায় দেখা যায় প্রতিদিন মাত্র ১ চামচ দারুচিনি গুঁড়ো দেহের কোলেস্টেরল কমায় এবং রক্তনালীতে প্লাক জমে ব্লক হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করে।







(৪) তৈলাক্ত মাছঃ

তৈলাক্ত মাছ বিশেষ করে সামুদ্রিক তৈলাক্ত মাছের ওমেগা৩ ফ্যাটি অ্যাসিড দেহের ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা কমিয়ে হৃদপিণ্ডকে চিরকাল সুস্থ ও নীরোগ রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।







(৫) তিসীবীজঃ

তিসীবীজে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আলফা লিনোলেনিক অ্যাসিড যা উচ্চ রক্তচাপ কমায় এবং রক্তনালীর প্রদাহকে দূর করতে সহায়তা করে এবং সেই সাথে রক্তনালীর সুস্থতা নিশ্চিত করে।







(৬) গ্রিন টিঃ

গ্রিন টি অর্থাৎ সবুজ চায়ে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যাচেটিন যা দেহে কোলেস্টেরল শোষণ কমায় এবং হৃদপিণ্ডকে সুস্থ রাখতে বিশেষভাবে সহায়তা করে। প্রতিদিনের চা কফির পরিবর্তে গ্রিন টি পান করলে দেহের সুস্থতা নিশ্চিত হয়।







(৭) কমলার রসঃ

গবেষণায় দেখা যায় প্রতিদিন ২ কাপ পরিমাণে শুধুমাত্র বিশুদ্ধ কমলার রস পান করলে রক্ত চাপ স্বাভাবিক থাকে। এবং কমলার রসের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রক্তনালীর সার্বিক উন্নতিতে কাজ করে ফলে রক্তনালী ড্যামেজ হওয়ার হাত থেকে রক্ষা পায়।







রক্তে ইউরিক অ্যাসিড বৃদ্ধি এবং গেঁটে বাতের প্রতিকার

শরীরে ইউরিক অ্যাসিড বেড়ে যাওয়ার সমস্যার সাথে আজকাল অনেকেই আমরা পরিচিত। কেননা শরীরে উচ্চ মাত্রার ইউরিক অ্যাসিডের উপস্থিতি কারণ হতে পারে গেঁটে বাত বা গিরায় গিরায় ব্যথার মত অসংখ্য স্বাস্থ্য সমস্যার।







মূত্রের মাধ্যমে যে পরিমাণ স্বাভাবিক ইউরিক অ্যাসিড বেরিয়ে যায়, তার চাইতে বেশি পরিমাণ ইউরিক অ্যাসিড যখন আমাদের যকৃত তৈরি করে তখনই রক্তে এর পরিমাণ মাত্রা ছাড়ায়।

এছাড়া স্বাভাবিক অবস্থায় খাবার হতে উৎপন্ন ইউরিক অ্যাসিড রক্তে মিশে যায়, রক্তে বাহিত হয়ে তা কিডনিতে পৌঁছায় এবং কিডনি এই টক্সিক উপাদানকে বের করে দের শরীরের বাইরে।







তবে আজকাল আমাদের এমন খাবার খাওয়া অনেক বেশি পড়ে যা রক্তে বাড়িয়ে দেয় ইউরিক অ্যাসিড, এতটা বেশি যে কিডনি সেটা শরীর থেকে বের করতে পারে না এবং ক্রমশ আপনার শরীরের বাড়তে থাকে ইউরিক অ্যাসিডের উপস্থিতি।

ফলে আপনি হয়ে পড়তে থাকেন অসুস্থ। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে হাঁটু সহ বিভিন্ন অস্থিসন্ধিতে ইউরিক অ্যাসিড জমা হতে থাকে এবং তাতে অস্থিসন্ধি ফুলে যায় এবং ব্যথা হয়। উচ্চ মাত্রায় চিনি খাওয়াও হতে পারে ইউরিক অ্যাসিড বৃদ্ধির একটা বড় কারণ।







দেহে উচ্চ মাত্রার ইউরিক এসিদের উপস্থিতির কারণে হতে পারে গেঁটে বাত, উচ্চ রক্তচাপ, কিডনি ড্যামেজ হওয়া যাওয়া হতে শুরু করে আরও নানান রকমের অসুখ।

কী করবেন?







জেনে নিন শরীরে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখার ও ইউরিক অ্যাসিড শরীর থেকে বের করে দেয়ার একটি সহজ কৌশল। স্বাভাবিক অবস্থায় দেহে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা হচ্ছে- পুরুষের ক্ষেত্রে: ৩.৪–৭.0mg/dL নারীর ক্ষেত্রে: ২.৪–৬.0 mg/dL এর চাইতে বেশি হলে নিয়ন্ত্রণ করা অত্যন্ত প্রয়োজন।

আমাদের শরীরে দুই ধরনের এমাইনো অ্যাসিডের প্রয়োজন পড়ে। একটি আবশ্যক (এসেনশিয়াল) এমাইনো অ্যাসিড। আরেকটি অনাবশ্যক (নন এসেনসিয়াল) এমাইনো অ্যাসিড। এই নন এসেনসিয়াল এমাইনো অ্যাসিডের মধ্যে একটি হলো পিউরিন।







এই পিউরিন স্বাভাবিকভাবেই আমাদের শরীরের প্রতিটি কোষে পাওয়া যায়। কারণ শরীরে পিউরিন তৈরি হয়। এ ছাড়া কিছু কিছু খাবার থেকেও আমরা পিউরিন নামক এমাইনো অ্যাসিড পেয়ে থাকি। কোষে থাকা এই পিউরিনের ভাঙনের ফলে ইউরিক অ্যাসিড তৈরি হয়।

এই ইউরিক অ্যাসিড রক্তে চলে যায়। নারীর ক্ষেত্রে রক্তে ইউরিক অ্যাসিডের স্বাভাবিক মাত্রা হলো ২ দশমিক ৪ থেকে ৬ দশমিক ০ মিলিগ্রাম পার ডিএল এবং পুরুষের ক্ষেত্রে ৩ দশমিক ৪ থেকে ৭ দশমিক ০ মিলিগ্রাম পার ডিএল।







আমরা যদি দেহের চাহিদার থেকে বেশি পরিমাণে প্রোটিন খেয়ে থাকি বা খাবারে যদি এলকোহল জাতীয় খাবারের পরিমাণ বেশি থাকে, তা থেকে দেহে পিউরিন নামক নন এসেনসিয়াল এমাইনো অ্যাসিড তৈরি হয়। এই পিউরিনের শেষ উৎপাদন (এনডপ্রডাক্ট) হিসেবে ইউরিক অ্যাসিড তৈরি হয়।

এই ইউরিক অ্যাসিড প্রথমে রক্তে চলে যায়। সেখান থেকে কিডনির মাধ্যমে প্রস্রাবের সঙ্গে দেহ থেকে বের হয়ে যায়। রক্তে যদি ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে বৃদ্ধি পায় এই অবস্থাকে বলা হয় হাইপারইউরিসেমিয়া।







এই অতিরিক্ত ইউরিক অ্যাসিড সূক্ষ্ম স্ফটিক (ক্রিস্টাল) আকারে জয়েন্টের মধ্যে বিশেষ করে পায়ের আঙ্গুলে ব্যথা সৃষ্টি করে। এ ছাড়া আমাদের দেহের শ্বেত কণিকা এই ইউরিক অ্যাসিড স্ফটিককে ফরেন বডি মনে করে আক্রমণ করে।







ফলে বিভিন্ন জয়েন্টে ব্যথা হয় বা ফুলে যায়। এই অবস্থাকে টোফেস বলে। প্রথম অবস্থায় শুধু পায়ে ব্যথা হয়। আস্তে আস্তে এর তীব্রতা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে পা ফোলা, হাঁটু ও হাঁটুর জয়েন্টে ব্যথা হয়।

ফলে ইউরিক অ্যাসিড আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁটতেও সমস্যা হয়। হাইপারইউরিসেমিয়ার কারণে শরীরে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হতে পারে। যেমন : বাত, কিডনিতে পাথর, কিডনি অর্কাযকর হওয়া, উচ্চরক্তচাপসহ নানা ধরনের রোগ হতে পারে।