Sunday , 20 May 2018

সাপে কাটা রোগীকে ওঝার চিকিৎসায় জীবন্ত কবর, অতঃপর…

৩৫ বছর বয়সী নারী দেবেন্দ্রী। পাঁচ সন্তানের মা তিনি। ভারতের উত্তর প্রদেশে বসবাসকারী নারীর মৃত্যু হয় স্থানীয় এক ওঝার মনগড়া চিকিৎসায়। সাপে কাটা রোগীকে ওঝার চিকিৎসায় জীবন্ত কবর, অতঃপর মৃত্যু হয় সেই নারীর।







রান্নার জন্য জঙ্গলে লাকড়ি খুঁজতে গিয়েছিলেন দেবেন্দ্রী। সেখানেই তাকে সাপে কাটে। স্ত্রীকে বাঁচাতে স্বামী মুকেশ কোন উপায় না দেখে ছুটে যান সেখানকার এক ওঝার কাছে। প্রত্যন্ত গ্রামে বসবাস করেন বিধায় মুকেশের আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানের জ্ঞান অনেক কম। এর চেয়ে ওঝা ও জাদুটোনার প্রতিও তার আস্থা অনেক বেশি।







এদিকে ওঝার প্রতি মুকেশের এমন অন্ধ বিশ্বাস দেখে সুযোগটি লুফে নেন সেই ওঝা। ইচ্ছেমতো মনগড়া চিকিৎসা চালান সাপে কাটা দেবেন্দ্রীর ওপর। প্রথমেই তিনি দেবেন্দ্রীকে গোবর দিয়ে ঢেকে দিতে বলেন।







ওঝাকে বিশ্বাস করে মুকেশ স্ত্রীকে গোবর দিয়ে ঢেকে দেন। সেই সময় দেবেন্দ্রীর আশপাশে সবাই অপেক্ষা করতে থাকেন, এই বুঝি গোবরের নিচ থেকে বের হয়ে সুস্থ হয়ে ফিরবেন দেবেন্দ্রী। কিন্তু এটা যে একটা ভণ্ডামি ছিল, তা বুঝতে পারেনি মানুষ। অবশেষে ৭৫ মিনিট পর গোবরের নিচে অক্সিজেনের অভাবে শ্বাসরোধ হয়ে মারা যান পাঁচ সন্তানের মা দেবেন্দ্রী। আর মুকেশ হারান তার স্ত্রীকে।