ভালোবাসা দিবসে কি উপহার পেলেন পরীমণি?

পরীমণি নামই যার বিশেষণ। চলচ্চিত্রে নিজের অভিনয় দক্ষতা দিয়ে যেমন জয় করেছেন দর্শকদের দর্শকদের ঠিক তেমনি ব্যাক্তি জীবনেও জয় করেছেন লাভগুরুর মন।

বেশ অনেক দিন ধরেই লাভগুরুর সাথে পরীর চলছে প্রেম। ফেসবুকে ছবি পোষ্ট করলেও এবার ভালোবাসা দিবসে নিজেদের ভালোবাসার কথা শেয়ার করলেন তাদের দর্শকদের সাথে।
বুধবার রাত আটটায় রেডিও আমার এ ভালোবাসা দিবসে উপলক্ষে আয়োজিত বিশেষ অনুষ্ঠানে নিজেদের ভালোসার গল্প শোনান পরী ও লাভগুরু। জানান প্রথম পরিচয়, ভালোবাসা, মান-অভিমান সহ আরো অজানা অনেক কথা।

লাভগুরুর সাথে প্রথম পরিচয় নিয়ে পরী বলেন, ‘২০১৫ সালে আমার ফোনে একটা কল আসে। আমি আন-নোন নাম্বার বলে রিসিভ করিনি। এরপর এসএমএস আসে। সেখানে ব্র্যাকেটে শুধু একটাই শব্দ ছিল ‘লাভ গুরু’। আমি ভাবলাম লাভগুরু আবার কী? এরপর আমি জানতে পারলাম জনপ্রিয় রেডিও অনুষ্ঠানটির কথা। সেই অনুষ্ঠানে ‘লাভগুরু’ তিনি। আমি তখন কল ব্যাক করলাম। পরে তার অনুষ্ঠানেও গেলাম। এ ভাবেই পরিচয়। আমরা ফেসবুক ফ্রেন্ড হলাম। হাই হ্যালো হতো। তার অনুষ্ঠানে আমি আমার পরিবারের গল্প শেয়ার করেছিলাম। লক্ষ্য করলাম, সে আমার নানু (নানা) ভাইয়ের খোঁজখবর নিচ্ছে। নানুভাই আমার সবচেয়ে কাছের মানুষ। তার খোঁজখবর নিলে আমার ভালো লাগতো। এবং এই কাজটি সে গভীরভাবে করত। তখন আমার মনের মধ্যে তার প্রতি একটা সফট কর্নার তৈরি হলো। শুরু হলো সর্ম্পক।

তুমি সম্বোধন করার সময়কাল উল্লেখ করে পরী বলেন, ‘একবার চকলেট-ডে উপলক্ষে সে আমাকে চকলেট উপহার দিয়েছিল। তখন আমি এফডিসিতে ‘ধুমকেতু’ সিনেমার শুটিং করছিলাম। এর মাধ্যমে দুজনের ফ্রেন্ডশিপ হলো। এরপর দুজন দুজনার খোঁজখবর নিতাম। এভাবে আপনি থেকে আমরা ‘তুমি’তে নেমে এলাম। একবার ওর জন্মদিনে আমার কোনো এক কারণে খুব মন খারাপ ছিলো। বন্ধুদের নিয়ে ও ঘুরতে গিয়েছিলো। তখন আমি বললাম, ছেলে বন্ধুদের নিয়ে ঘুরতে যাবে, মেয়ে বন্ধুদের নিয়ে যাবে না। খালি মুখে মুখেই ‘ফ্রেন্ড ফ্রেন্ড’ করো। এ কথা শোনার পর বাসার ঠিকানা চেয়ে নিল। রাতে দেখি সে সত্যি সত্যি আমার বাসায় এসে উপস্থিত। তখন আমি তাকে বললাম, আমি জানতাম না তোমার জন্মদিন। কাল আমরা কেক কাটবো। পরদিন আমি কেক কেটেছিলাম।’

অনুষ্ঠানের এক ফাকে পরী জানান তার ভ্যালেনটাইন গিফটের কথা। প্রোগ্রামে আসার সময় গাড়িতে তাকে আংটি পরিয়ে দিয়েছেন লাভগুরু খ্যাত তামিম।

Comments

comments