অচেতন করে বন্ধুদের হাতেই গনধর্ষণের শিকার ছাত্রী

ভ্যালেন্টাইনস ডে-র আগের সন্ধ্যায় ছাত্রীকে মাদক খাইয়ে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ তাঁরই বন্ধুদের বিরুদ্ধে। ঘটনা সোনারপুরের রথতলার। ঘটনায় ৪ যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

ফের শিরোনামে সোনারপুর। ছাত্রীকে অপহরণের পর এবার বান্ধবীকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে কাঠগড়ায় বন্ধুরা। মঙ্গলবার রাতে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করেন এক বন্ধুর পরিজনরাই।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় টিউশন পড়ার নাম করে বাড়ি থেকে বেরোয় সোনারপুরের মানিকপুরের বাসিন্দা
দ্বাদশ শ্রেণির ওই ছাত্রী। অভিযোগ, সেই সময়ই অর্ঘ্য দাস নামে এক যুবক ওই ছাত্রীকে নিয়ে সোনারপুর রথতলায় উত্পল গায়েন নামে এক বন্ধুর বাড়িতে আসে। সেখানে আগে থেকেই উপস্থিত ছিল আরও কয়েকজন যুবক। জানা গেছে, তাঁরা প্রত্যেকেই ওই ছাত্রীর পূর্বপরিচিত। নির্যাতিতা ছাত্রীর সঙ্গে একই নাটকের দলে অভিনয় করে অর্ঘ্য দাস। অভিযোগ, এরপরই ঠান্ডা পানীয়ে মাদক মিশিয়ে খাইয়ে ওই ছাত্রীকে যৌন নির্যাতন করেন যুবকরা ।

যদিও যৌন নির্যাতনের অভিযোগ মানতে নারাজ অভিযুক্ত উত্‍পলের মা ও কাকা। তাঁদের দাবি, অতিরিক্ত মদ খেয়েই অসুস্থ হয়ে পড়ে ওই তরুণী। তাঁরাই ওই তরুণীকে উদ্ধার করে বাড়ির লোককে খবর দেন। কিন্তু নির্যাতিতার দিদির অভিযোগ, তার বোনের শরীরে একাধিক আঘাতের চিহ্ন মিলেছে। শরীর থেকে রক্ত বেরচ্ছিল। প্রমাণ লোপাটের জন্য পোশাক ধুয়ে ফেলা হয়। হাত ও পায়েও রয়েছে বাঁধনের চিহ্ন। হারিয়ে গেছে মোবাইল ফোনটিও।

পুলিশকে ওই ছাত্রী জানিয়েছে, উত্পল গায়েনের বাড়িতে তাকে ঠান্ডা পানীয় খেতে দেওয়া হয়েছিল। তারপরই সংজ্ঞা হারান তিনি। স্থানীয় হাসপাতালে ডাক্তারি পরীক্ষায় ওই ছাত্রীর উপর যৌন নির্যাতনের প্রমাণ মিলেছে। এখনও পর্যন্ত এই ঘটনায় ণূল অভিযুক্ত অর্ঘ দাস সহ ৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

Comments

comments